ট্রাফিক সংকেতে তিন ধরনের বাতি  থাকে যা দ্বারা চালকের দিক নির্দেশ করে । বাতিগুলো হচ্ছেঃ

(১)লাল বাতিঃ  এটি দ্বারা চালককে ট্রাফিক লাইনে গাড়ি থামানোর জন্য নির্দেশ দেওয়া হয় ।

(২)হলুদ বাতিঃ এটি দ্বারা চালকে সবুজ লাইট না জ্বালানো পর্যন্ত গাড়ি থামিয়ে রাখার  নির্দেশ দেওয়া হয়।

(৩)সবুজ বাতিঃ এটি দ্বারা চালকে ট্রাফিক লাইনে গাড়ি চালানোর নির্দেশ দেওয়া হয় ।

 

প্রয়োজনীয় উপকরণ সমূহ:

  • 9V ব্যাটারি (ইনপুট)
  • 100K, 22K and 330 ohm রেজিস্টরস
  • 1µF, 10µF and 2.2mF কেপাসিটরস
  • Six 1N4148 ডাইওডস
  • 555 টাইমার আইসি (পালস জেনারাটর)
  • 4017 আইসি কাউন্টার (প্রধান আইসি)
  • 1M পটেনশিয়মিটার
  • লাল, হলুদ এবং সবুজ  এল ই ডি(আউটপুট)

সার্কিট ডায়াগ্রাম:’

9w0js

কার্যপদ্ধতি:

ট্রাফিক লাইট তৈরি করা হয় কাউন্টার আইসি দ্বারা যা কিনা পরযায়ক্রমীয়  আইসির(Sequential IC) জন্য ব্যবহার করা হয়। এর জন্য ট্রাফিক লাইটকে পরযায়ক্রমীয় ট্রাফিক লাইটও বলা হয়। প্রধান আইসি হল 4017 আইসি কাউন্টার যা দ্বারা ট্রাফিক লাইটগুলো(লাল,হলুদ,সবুজ) পর্যায়ক্রমে জ্বলতে থাকে। 555টাইমার পালস জেনারেটর  হিসেবে কাজ করে যা দ্বারা একটা Input প্রধান আইসিকে প্রদান করে ।বাতিগুলোর পর্যায়ক্রমিক জ্বলা 555 টাইমারের পালসের উপর সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করে যা দ্বারা আমরা পটেনশিয়মিটারকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। ফলে আমরা যদি বাতিগুলোর রঙ পর্যায়ক্রমে পরিবর্তন করতে চাই তাহলে পটেনশিয়মিটারকে পরিবর্তন করতে হবে কারন পটেনশিয়মিটারের মধ্যে সময়সূচির পযায়ক্রমিক সকল কাজ বিদ্যমান থাকে। বাতিগুলো স্থির না থাকার কারণে এল ই ডি  গুলো সরাসরি 4017 আইসি কাউন্টারের সাথে সংযুক্ত থাকে না। তাই 1N4148 ডায়ওড ও এল ই ডি গুলোর সম্বনয় নিয়ে কাজ করলে আমরা এল ই ডি গুলোর পর্যায়ক্রমিক জ্বলার একটি  সঠিক আউটপুট পাব।

 

উপসংহার এবং ভবিষ্যৎ উন্নয়ন

পরিশেষে বলা যায় যে, রাস্তাঘাটের দূরঘটনা ও জ্যাম এড়িয়ে চলতে ট্রাফিক লাইটের গুরুত্ব অপরিসীম।ট্রাফিক লাইট নিয়ন্ত্রণে আসলে, জনগণের সাথে সাথে ট্রাফিক প্রবাহের উন্নয়ন সম্ভব হবে এবং এটি সহজে পরিচালনা করা যাবে ও এটিকে সমশ্রেণীভুক্ত করে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ট্রাফিক সংকেত পাঠানো সম্ভব হবে।

ট্রাফিক লাইট সিস্টেমটি এখনো সম্পূর্ণভাবে নিরাপদ নয়, সিস্টেমটিকে সম্পূর্ণভাবে নিরাপদ করার জন্য  ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার সাথে সাথে যানবাহন ডিটেক্টর ও ক্যামেরা যোগ করে সম্পূর্ণ অটোমেটেড একটি সফটওয়্যার তৈরি করা যেতে  পারে ।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *